1. smsitservice007gmail.com : admin :
মাদক কারবারিদের দখলে এখন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন - সতেজ বার্তা ২৪
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৯:২১ অপরাহ্ন
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৯:২১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জে সাংবাদিকদের ওপর হামলা দেবোত্তর সম্পত্তি আত্মসাৎ ও শিব লিঙ্গ বিক্রির অভিযোগ ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকের ডিগবাজি না’কি বিদ্রোহ? সাভারে মাদকের সয়লব , এক নজরে মাদক গ্যাং রাজশাহী আওয়ামী  প্রকাশ্যে বিভক্তির আভাস দায়ী কে ? তানোরে ৩টি পাকা রাস্তা নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ভোলার লালমোহন উপজেলার ৭নং পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী তরুন মেধাবী যুবনেতা সাইফুল ইসলাম শাকিল তানোরে প্রবেশপত্র আটকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ চাষাড়ায় ফিল্ম স্টাইলে কুপিয়ে দানিয়াল নামের এক যুবককে হত্যা করলো দুর্বৃত্তরা..! তানোরে দোকানের সামনে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করে প্রতিবন্ধকতা

মাদক কারবারিদের দখলে এখন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন

নারায়ণগঞ্জ সদর প্রতিনিধি :-
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২৩
  • ২৭ বার পঠিত


মাদক কারবারিদের দখলে এখন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৭নং ওয়ার্ডের দুইটি কবরস্থান ভোগান্তি তে এলাকাবাসি..?

 

নারায়ণগঞ্জ সদর প্রতিনিধি :-নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৭নং ওয়ার্ডের পাইকপাড়ায় মুলত দুইটি কবরস্থান রয়েছে। যার একটি ১৭নং ওয়ার্ডের ছোট কবরস্থান নামে ও ওপরটি পাইকপাড়া বড় কবরস্থান নামে পরিচিত। এই দুই টি কবরস্থানে মৃতদের মাটি দিয়ে থাকেন আশে পাশের আরো কয়েটি ওয়ার্ডের জনগন।

 

এখন নানা ভাবেই ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে কবরস্থানে আসা লোকজনের ও এলাকাবাসীর। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক লোক জানান যে আমরা পাইকপাড়া এলাকার স্থায়ি বাসিন্দা আমরা ছোট থেকেই দেখে আসছি আমদের এলাকাতে থাকা পাইকপাড়া ছোট কবরস্থান ও পাইকপাড়া বড় কবরস্থানে নানা এলাকার মানুষ মৃত্যু বরন করলে এখানে মাটি দিতে আসে। কোন দিন কোনো এলাকার মানুষ এমন ভোগান্তির শিকার হতে হয়নি যা এখন এখনার মাদক বানিজ্যের কারনে হতে হচ্ছে মাটি দিতে আসা লোকজনের।

 

 

 

 

প্রতিবেদকের করা এক প্রশ্নের জবাবে আরো জানান যে আপনি যেই প্রশ্নটি করলেন যে তাহলে কারা এই পবিত্র স্থানটি কে মাদকের আখরা বানিয়েছে।

 

 

 

 

পাইকপাড়া ছোট কবরস্থান ও পাইকপাড়া বড় কবরস্থানের উভয় জায়গায় একইভাবে মাদক কারবারি করে আসছেন পাইকপাড়া এলাকার কিছু চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও মাদক কারবারি রা যারা এই এলাকা দুইটি কে মাদকে হাট বাজার বানিয়েছে এদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি মানুষ মারা গেলে যেই জায়গায় চিরতরে রাখা হবে সেই জায়গা টি।

 

পাইকপাড়া ছোট কবরস্থান এলাকায় কবরস্থান কে ঘিরে মাদক বানিজ্য করেন এই এলাকার সানু,মিয়ার ছেলে রিকু ও পাইকপাড়া বড় কবরস্থানে মাদক বানিজ্য করেন পাইকপাড়া দেওয়ান বাড়ির খলিল মিয়ার দুই ছেলে রঞ্জু ও ইমন।

 

এদের প্রত্যেকের নিজস্ব বাহিনী রয়েছে যাদের মাধ্যমে তার মাদক কারবারি করেন।

 

এই বিষয়ে নিশ্চিত হতে প্রতিবেদক অনুসন্ধান করলে উঠে আসে আরো অনেক অজানা রহস্য।

 

অনুসন্ধানে উঠে আসে পাইকপাড়া ছোট কবরস্থান এলাকার চিন্তিত মাদক কারবারি রিকু একজন বেশ বড় মাপের মাদক এর ডিলার ২০১৪,একবার রিকু গ্রেরেফতার হয় এবং ২০১৭ সালে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ এই রিকু ও তার সহযোগী টুটুল কে প্রায় ৪০ হাজার পিস ইয়াব সহ কারে গ্রেফতার করে সে সময় রিকু সুকৌশলে বেরিয়ে আসলেও আটকা পড়ে তার সহযোগী টুটুল নামে একজন বর্তমানে টুটুল জামিনে বের হয়ে আবার রিকুর মাদক বানিজ্যে নিজেকে জরিয়েছেন বলে জানা গেছে । টটুল ও রিকুর এই মাদক সহ আটকের বিষয়টি সে সময় নারায়ণগঞ্জে বেশ আলোরোন হয়েছিলো। তার পরেও রিকু আবারো তার মাদক বানিজ্য করেই যাচ্ছেন। এখন তার দখল থেকে রেহাই পাচ্ছে না পবিত্র স্থান পাইকপাড়া ছোট কবরস্থান।

 

 

 

 

অন্য দিকে পাইকপাড়া বড় কবরস্থান রয়েছে পাইকপাড়া দেওয়ান বাড়ির খলিল মিয়ার দুই ছেলে রঞ্জু ও ইমনের মাদক বানিজ্যের দখলে।

 

 

 

 

রঞ্জুর পুরো নাম রমজান হোসেন রঞ্জু এলাকাতে তাকে রঞ্জু বলেই সকলে চিনে মাদক কারবারি দের কাছে রঞ্জু বলেই তিনি পরিচিত। রঞ্জু ছোট ভাই ইমন যাকে সকলে দেওয়ান বাড়ির ইমন বললেই চিনে থাকে। এদের দুই জনের রয়েছে একাদিক মামলা তার মধ্যে উল্লেখ রঞ্জুর নামে নিজ স্ত্রী হত্যা সহ আলোচিত চোক্কা সুমন মার্ডার মাললার প্রধান আসামিও এই মাদক কারবারি রঞ্জু। স্ত্রী হত্যা মামলায় জামিনে আছে ও চোক্কা সুমন হত্যা মামলার প্রধান আসামি হয়েও পেশি শক্তি ও অবৈধ মাদক কারবারের অর্থ ব্যয় করে আপোষ করেছেন বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়।

 

 

 

 

রঞ্জুর মাদক বানিজ্য বড় কবরস্থানের পাশে থাকা পুকুর পাড় ও টিনের মসজিদের সমগ্র এলাকাতে। এখানে রঞ্জু নিযুক্ত আছে মাদক বিক্রির জন্য অনেক জন মাদক বিক্রেতা যারা দিন রাত সকল সময়েই বিক্রি করেন পাইকপাড়া বড় কবরস্থানের পাশে এই মরন নেশা।

 

 

 

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক দোকানদার জানান যে আমাদের এলাকায় মৃতব্যক্তির লাশ মাটি দিতে আসে আশেপাশে থাকা আরো কয়েটি এলাকার মানুষ। বর্তমানে আমাদের পাইকপাড়া বড় কবরস্থানে রঞ্জু ও ইমনের মাদক বানিজ্যের কারনে বিভিন্ন সময় মাটি দিতে আসা লোকজনের ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছেন কিছু দিন আগে দেওভোগ এলাকা থেকে মাটি দিতে আসা লোকজনের কাছে থেকে তাদের মোবাইল ফোন ও নগদ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে গেলো যা কোনোদিন আমাদের এলাকায় হয় নি এখন রঞ্জু ও ইমনের মাদক বানিজ্যের জন্য হচ্ছে।

 

 

 

 

একই সাথে এরা আমাদের এলাকাকে কলঙ্কিত করেছ অন্য দিকে পাইকপাড়া বড় কবরস্থান এলাকার যুবসমাজ কেও এরা নষ্ট করছে। এতে আমরা আমাদের ছেলেমেয়ে দের হারাচ্ছি তেমনি এলাকাও অসম্মানজনক স্থানে নিয়ে দ্বারা করেছে এই মাদক বানিজ্য।

 

 

 

 

এ বিষয়ে নাসিক ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবুর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান আমি বিভিন্ন সময় এলাকাতে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করি এবং এদের কে কঠিন ভাবে শাস্তি প্রধান করি কিন্তূ এরা বার বার এই মাদক বানিজ্যেই জড়িয়ে পড়ে। অনেক বার এদের পুলিশের কাছে দিয়েছি কিছুদিন সব ঠিক থাকে আবার দেখা যায় তারা তাদের এই মাদক বানিজ্যই করে বলে শুনতে পাই যেমন টা আপনি জানালে আমি এদের বিরুদ্ধে অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে কঠিন পদক্ষেপ গ্রহণ করে আমার এলাকাকে মাদক মুক্ত এলাকায় পরিবর্তন করবো ইনশাআল্লাহ এতে এলাকাবাসীর সহায়তা আমার বিশেষ প্রয়োজন তাদের তথ্যের মাধ্যমেই আমি আমার এলাকা মাদক বানিজ্যের কবল থেকে হেফাজত করতে পরবো।

 

 

 

 

তাই আমরা চাই এই মাদক কারবারি দের কবল থেকে মুসলিম জাতির শেষ ঠিকানা পাইকপাড়া ছোট ও পাইকপাড়া বড় কবরস্থান কে অতিদ্রুত রক্ষা করতে এই চিহ্নিত মাদক কারবারি রিকু, রঞ্জু, ইমন গং দের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে কঠোর আইনি উদ্যোগ গ্রহন করে শাস্তি নিশ্চিত করা। এটাই এখন ১৭নং ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনগণের দ্বাবি তে পরিনতি হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর
Translate »