1. smsitservice007gmail.com : admin :
দশমিনায় চোরের উপদ্রব বেড়ে যাওয়ায় অতিষ্ঠ উপজেলার মানুষ। - সতেজ বার্তা ২৪
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৪:১৭ পূর্বাহ্ন
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৪:১৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জে সাংবাদিকদের ওপর হামলা দেবোত্তর সম্পত্তি আত্মসাৎ ও শিব লিঙ্গ বিক্রির অভিযোগ ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকের ডিগবাজি না’কি বিদ্রোহ? সাভারে মাদকের সয়লব , এক নজরে মাদক গ্যাং রাজশাহী আওয়ামী  প্রকাশ্যে বিভক্তির আভাস দায়ী কে ? তানোরে ৩টি পাকা রাস্তা নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ভোলার লালমোহন উপজেলার ৭নং পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী তরুন মেধাবী যুবনেতা সাইফুল ইসলাম শাকিল তানোরে প্রবেশপত্র আটকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ চাষাড়ায় ফিল্ম স্টাইলে কুপিয়ে দানিয়াল নামের এক যুবককে হত্যা করলো দুর্বৃত্তরা..! তানোরে দোকানের সামনে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করে প্রতিবন্ধকতা

দশমিনায় চোরের উপদ্রব বেড়ে যাওয়ায় অতিষ্ঠ উপজেলার মানুষ।

 দশমিনা,উপজেলা প্রতিনিধিঃ
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৫৭ বার পঠিত

পটুয়াখালী জেলার দশমিনা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত রাতের অন্ধকারে চুরির ঘটনা ঘটছে বলে জানাযায়, উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘরের মালামাল স্বর্ণ টাকা ও ধন সম্পদ লুট করে নিয়ে যায় চোর চক্র এতে নিঃস্ব হচ্ছে উপজেলার সাধারণ মানুষ এতে চুরি যাওয়া মানুষ যেমন সর্বস্ব হারিয়ে হচ্ছে নিঃস্ব তেমনি চুরির ঘটনায় উপজেলার অধিকাংশ মানুষ আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। জানা যায়, গত ৪-৫ মাস যাবত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় চুরির ঘটনা ঘটছে গভীর রাতে চোরচক্রের সদস্যরা ধারণা করা হচ্ছে মানসিক হিপনোটাইজিং স্প্রে ব্যবহার করে অভিনব কৌশল অবলম্বন করে জানালার গ্রিল কেটে ও তালা ভেঙে ঘড়ে প্রবেশ করে সিন্দুক ও লকারের লক ও তালা ভেঙে অভিনব কায়দায় স্বর্ন অলঙ্কার নগদ টাকা সহ মূল্যবান সম্পদ চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে চোর চক্রের সদস্যরা। এতে নিস্ব হচ্ছে খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ নিজের সারা জীবনের পুঁজী হারিয়ে ভেঙে পরছে শত ভুক্তভোগী পরিবার। চুরির শিকার হওয়া এক ভুক্তভোগী বলেন, গত ৪ মাস আগে চোর চক্র আমার বসত ঘরের পাটাতনের এক পাশের জানালার গ্রিল কেটে অভিনব কায়দায় আমার ঘরে প্রবেশ করে ঘরের ভেতরে থাকা লকার ভেঙে ৫ ভড়ি স্বর্ন ও নগদ ৫০ হাজার টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়। পরিবারের সকল সদস্যরা ঘরে থাকলেও চোর চক্র হিপনোটাইজিং স্প্রে ব্যাবহার করার ফলে তারা গভীর ঘুমে মগ্ন হয়ে অচেতন হয়ে পরলে চোর চক্র সকল মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায়। ভুক্তভোগী বলেন এই চুরির ঘটনার বিষয়ে স্হানীয় থানায় অভিযোগ করলে ও তারা কোনো ব্যবস্থা গ্রহন করেননি এমনকি অভিযোগের কোনো তদন্ত করেন নি দশমিনা উপজেলা প্রাশাসন। উপজেলার সাধারণ মানুষ ও ভুক্তভোগীদের দাবি প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের নিরব ভূমিকা পালনে চোর চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে। স্হানীয়রা জানায়, স্হানীয় কিছু অসাধু কুচক্রী মহলের সাহায্যে নিয়ে চোর চক্র এই লুটপাট চালায় চুরির বিষয় নিয়ে স্হানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা যদি একটু কঠোর অবস্থান অবলম্বন করে তাহলে হয়তো উপজেলা বাসি এই চুরির মতো ঘটনা থেকে পরিত্রান পেতে পারে।

এ জাতীয় আরও খবর
Translate »