1. smsitservice007gmail.com : admin :
রাজশাহী-৪ আসনে চ্যালেঞ্জের মুখে এমপি এনামুল  - সতেজ বার্তা ২৪
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন
রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকের ডিগবাজি না’কি বিদ্রোহ? সাভারে মাদকের সয়লব , এক নজরে মাদক গ্যাং রাজশাহী আওয়ামী  প্রকাশ্যে বিভক্তির আভাস দায়ী কে ? তানোরে ৩টি পাকা রাস্তা নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ভোলার লালমোহন উপজেলার ৭নং পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী তরুন মেধাবী যুবনেতা সাইফুল ইসলাম শাকিল তানোরে প্রবেশপত্র আটকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ চাষাড়ায় ফিল্ম স্টাইলে কুপিয়ে দানিয়াল নামের এক যুবককে হত্যা করলো দুর্বৃত্তরা..! তানোরে দোকানের সামনে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করে প্রতিবন্ধকতা ২০ বছর পাড় হয়নি ধর্ষন, মাদক সহ ২৪টি মামার আসামি ইয়াবা সুন্দরীর ছেলে কিশোর গ্যাং লিডার তানভীরের. রাজশাহীতে সংরক্ষিত আসনে এক ডজন নেত্রী আলোচনায় মর্জিনা

রাজশাহী-৪ আসনে চ্যালেঞ্জের মুখে এমপি এনামুল 

আলিফ হোসেন, তানোরঃ
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৭১ বার পঠিত

রাজশাহী-৪ আসনে তিনবারের সাংসদ প্রকৌশলী এনামুল হক। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। এবার তার বিরুদ্ধে প্রকাশ্য মাঠে নেমেছেন দলটির চারজন নেতা। এরা হলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাকিরুল ইসলাম সান্টু ও অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন, তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ এবং আওয়ামী  স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহসভাপতি পিএম শফিকুল ইসলাম শফি। প্রকাশ্যে সমাবেশ করে এমপির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আগামী নির্বাচনে তাকে প্রতিহতের ঘোষণা দিয়েছেন এই চার নেতা। ফলে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাংসদ এনামুল হককে এবার মনোনয়ন যুদ্ধে  কঠিন চ্যালেঞ্জের মূখে পড়তে হয়েছে বলে মনে করছেন নেতাকর্মীরা।
জানা গেছে, রাজশাহী-৪ আসনে টানা তিনবারের নির্বাচিত সাংসদ এনামুল হক।
রাজনৈতিক অঙ্গনে তার ইতিবাচক দিক রয়েছে, তবে নেতিবাচক দিকও কম নয়।
ফলে যেই আসনে এক সময়  এমপি এনামুল হক ছিলেন অপ্রতিদ্বন্দী নেতৃত্ব ও ছিল একচ্ছত্র আধিপত্য। এখন সেই আসনে তাকেই টেক্কা দিতে মাঠে নেমেছেন তার এক সময়ের ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহচর তৃণমুলের নেতা
জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জাকিরুল ইসলাম সান্টু ও অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন, তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ এবং আওয়ামী  স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহসভাপতি পিএম শফিকুল ইসলাম শফি। এমপি এনামুলের সুখের ঘরে এখন জ্বলছে  দুুঃখের আগুন
বলে মনে করছেন তৃণমুলের  নেতা ও কর্মী-সমর্থকেরা।
স্থানীয় নেতাকর্মীরা জানান, এমপি মনোনয়ন প্রত্যাশী এই চার নেতা দলের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিতে শুরু করেছেন। তাদের তৎপরতায় বাগমারা আওয়ামী লীগে  স্পষ্টত বিভক্তি দেখা দিয়েছে। এমপি এনামুলের বিরোধীতা করে এসব নেতার সঙ্গে প্রকাশ্যে মাঠে সরব স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রথম সারির একাধিক জৈষ্ঠ নেতা ও কর্মী-সমর্থকগণ। এদিকে পরিস্থিতি উপলব্ধি করে  নিজ নির্বাচনী এলাকায় ঘন ঘন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন সাংসদ এনামুল। তবে আশাব্যঞ্জক সাঁড়া পাচ্ছেন বলে মনে হচ্ছে না। এছাড়াও ঐক্যের আহবান
আহবান জানিয়ে তিনি তার
বিরোধীদের সঙ্গে বৈরী সম্পর্কের অবসান ঘটাতে ঐক্যে গড়ে তুলেছেন। তবে সেই ঐক্যের আড়ালে বাজছে অনৈক্যর সুর।এমপিবিরোধী অনুসারী নেতা-কর্মীরা বলছে, কাঁচের পাত্র ভাঙলে জোড়া দেয়া যায়,তবে তার দাগ থেকে যায়। ঠিক তেমনি এমপির সঙ্গে দীর্ঘদিনের বিরোধে তাদের মধ্যে যে ক্ষত সৃষ্টি হয়েছে, সেটিও ভোলার নয়।যে কারণে ঐক্যের আড়ালে অনৈক্যের সুর বাজছে। এদিকে নিজের টলমল অবস্থা শক্ত করতেই এমপি এনামুলের এমন ঘন ঘন কর্মসূচিতে অংশ নেয়া বলে মনে করছে এমপিবিরোধী
নেতাকর্মীরা।
তৃণমূলের অভিমত, এমপি এনামুলের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার পড়েছে ঝুঁকির মূখে দলীয় মনোনয়ন নিয়েও দেখা দিয়েছে চরম অনিশ্চয়তা। ইতমধ্যে আওয়ামী লীগের আদর্শিক, প্রবীণ-ত্যাগী-পরিক্ষিত ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীরা
তাকে ত্যাগ করেছে পাশপাশি তৃণমূলের
সিংহভাগ তার ওপর থেকে মূখ ফিরিয়ে নিয়েছে এতে দলে তাঁর নেতৃত্ব টিকিয়ে রাখায় কঠিন হয়ে পড়েছে।
রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জৈষ্ঠ
নেতা বলেন, যার বিরুদ্ধে জঙ্গিদের আশ্রয়-প্রশয় দেয়ার অভিযোগ
রয়েছে তাকে আওয়ামী লীগ এবার আর মনোনয়ন দিবেন না বলেই তাদের বিশ্বাস আর যদি দেয়া হয় তাহলে ফলাফল হবে ব্যর্থ।
বাগমারা আওয়ামী লীগের নেতা ও এমপি হিসেবে এনামুল দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তিনি তাঁর ঘনিষ্ঠ কিছু অনুগতদের ওপর
নির্ভর করে চলেছেন। কিন্ত্ত দলের প্রবীণ,ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ
নেতাকর্মীদের মূল্যায়নের পরিবর্তে অবমূল্যায়ন করেছেন। এছাড়াও
তাঁর বিরুদ্ধে জঙ্গিদের আশ্রয়-প্রশয়, অনিয়ম-দূর্নীতি ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের কথা নির্বাচনী এলাকার মানুষের মূখে মূখে প্রচার রয়েছে। আবার স্বজনপ্রীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার, আত্মীয়করণ, অনুপ্রবেশকারী হাইব্রিড ও সুযোগসন্ধানীদের অধিক মূল্যায়ন
করা হলেও প্রবীণ,ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন করা হয়েছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের।
স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রবীণ ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীর সঙ্গে এমপি এনামুলের প্রতিনিয়িত দুরুত্ব বাড়ছে।
রাজশাহীর অধিকাংশ সাংসদ, জেলা, উপজেলা, পৌরসভা ও স্থানীয়
আওয়ামী লীগের অনেক সিনিয়র নেতা তাকে প্রায় ত্যাগ করেছেন। পাশাপাশি তৃণমূলের একটি বড় অংশও মূখ ফিরিয়ে নিয়েছে। ইতমধ্যে বাগমারা উপজেলা ও তাহেরপুর পৌরসভা আওয়ামী লীগের বড় অংশের নেতাকর্মীগণ ঐক্যবদ্ধ হয়ে
আগামি সংসদ নির্বাচনে বাগামারায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী পরিবর্তনের দাবি করে দলের হাইকমান্ডের কাছে লিখিত আবেদন করেছে। এমনকি প্রার্থী পরিবর্তন করা না হলে এমপি
এনামুলবিরোধীরা তাকে পরাজিত করে প্রতিশোধ নিতে স্বাপক্ষ ত্যাগ করতে পারেন বলেও শোনা যাচ্ছে । এসব বিবেচনায় এবার তিনি আওয়ামী রীগের মনোনয়ন পেতে ব্যর্থ হবেন বলে সাধারণের মধ্যে আলোচনা হচ্ছে। বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগ ও
সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতা ও কর্মী-ড়সমর্থকগণের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের  সহসভাপতি ও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী জাকিরুল ইসলাম সান্টু বলেন, ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক  তিন মেয়াদে সাংসদ।  এক সময় তাঁর প্রতিদ্বন্দী কেউ ছিলনা। তিনি বলেন, তিনি তৃণমুল নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করেন নি। এজন্য আওয়ামী লীগের  নেতাকর্মীরা এখন আর তাকে চায় না। তিনি অভিযোগ করে বলেন, এমপি  তাঁর ক্ষমতার জোরে বাগমারা আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করেছেন। তিনি এখানে আওয়ামী লীগ  ও অঙ্গসংগঠনের কমিটির নামে বির্তকিতদের দ্বারা পকেট কমিটি করে রেখেছেন। প্রবীণ, ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে নিজের অনুগতদের  পদ দিয়েছেন। এবিষয়ে তাহেরপুর পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ বলেন, রাজনীতির মাঠে এমপি এনামুল হকের চরম ইমেজ সংকট দেখা দিয়েছে  তিনি অনেকটা জনবিচ্ছিন্ন তার আগের সেই জনপ্রিয়তা এখন নেই। যে কারণে অধিকাংশ নেতাকর্মী তাঁর বিকল্প নেতৃত্বর দাবি করছেন। এবিষয়ে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও মুঠোফোনে কল গ্রহণ না করায় এমপি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের কোনো বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
এ জাতীয় আরও খবর
Translate »