1. smsitservice007gmail.com : admin :
গাজীপুর মহানগর ২৪ নং ওয়ার্ড - এ প্রকাশ্যে চালিয়ে যাচ্ছে মাদকের রমরমা ব্যবসা - সতেজ বার্তা ২৪
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৩৫ পূর্বাহ্ন
সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৩৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকের ডিগবাজি না’কি বিদ্রোহ? সাভারে মাদকের সয়লব , এক নজরে মাদক গ্যাং রাজশাহী আওয়ামী  প্রকাশ্যে বিভক্তির আভাস দায়ী কে ? তানোরে ৩টি পাকা রাস্তা নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ভোলার লালমোহন উপজেলার ৭নং পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী তরুন মেধাবী যুবনেতা সাইফুল ইসলাম শাকিল তানোরে প্রবেশপত্র আটকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ চাষাড়ায় ফিল্ম স্টাইলে কুপিয়ে দানিয়াল নামের এক যুবককে হত্যা করলো দুর্বৃত্তরা..! তানোরে দোকানের সামনে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করে প্রতিবন্ধকতা ২০ বছর পাড় হয়নি ধর্ষন, মাদক সহ ২৪টি মামার আসামি ইয়াবা সুন্দরীর ছেলে কিশোর গ্যাং লিডার তানভীরের. রাজশাহীতে সংরক্ষিত আসনে এক ডজন নেত্রী আলোচনায় মর্জিনা

গাজীপুর মহানগর ২৪ নং ওয়ার্ড – এ প্রকাশ্যে চালিয়ে যাচ্ছে মাদকের রমরমা ব্যবসা

গাজীপুর প্রতিনিধি:
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ২১১ বার পঠিত
মাদক ব্যবসায়ী

গাজীপুর মহানগর ২৪ নং ওয়ার্ড চাপুলিয়া এলাকাই প্রকাশ্যে দিনের পর দিন বেপরোয়া ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে মাদকের রমরমা ব্যবসা। প্রতিবাদ করার মত যেন কেউ নেই এই শহরে। হতভম্ব হয়ে শুধু চেয়ে চেয়ে দেখে এলাকাবাসী। এলাকাবাসী জানান পুলিশের কিছু অনৈতিক লোক হাত করে নিয়ে দাপটের সাথে চালিয়ে যাচ্ছেন এই অবৈধ মাদকের ব্যবসা। মুসলমানের পবিত্র স্থান মসজিদ, সেই মসজিদের সামনে কি করে এই অনৈতিক কর্মকাণ্ড চালায় এই মাদক ব্যবসায়ীর পরিবার। চাপুলিয়া এলাকাবাসী বলেন, এই এলাকায় চার-পাঁচটা বাড়ি কে আমরা মাদক বাড়ি হিসেবে চিনি। এরা কারো কথা শোনে না। এদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এদের প্রতিবেশী লাভলী আক্তার। গাজীপুর মেট্রোপলিটন সদর থানায় যাওয়ার পর যখন একটি জিডি করতে গিয়ে জিটি করতে ব্যর্থ হন তখন এই অত্যাচারিত মহিলা ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কাছে গিয়ে লিখিত দিয়ে তারপর নিজ ঘরে ফিরে যান। পুলিশ এদের কথায় উঠে বসে। ২৪ নং ওয়ার্ড, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন গাজীপুর। বিষয়ঃ অভিযোগ প্রসঙ্গে। বাদী লাভলী আক্তার পিতা- কেরামত আলী | সাং- চাপুলিয়া ডাকঘরঃ বিওএফ | গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন, গাজীপুর | মোবাইলঃ ০১৭৭৭৮৫৯০৭৬ মহোদয়, বিবাদী-শুঙ্কুর আলী, পিতা- বাতেন,সাং- চাপুলিয়া ডাকঘরঃ বিওএফ গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন। যথাযথ সম্মান প্রদর্শন পূর্বক বিনীত নিবেদন এই যে, আমি নিম্ন স্বাক্ষরকারী লাভলী আক্তার এই মর্মে অভিযোগ করিতেছি যে, আমার প্রতিবেশি আসামী শুকুর আলী একজন পেশাদার চোর। উল্লেখ্য, গত ১০/০৩/২০২৩ইং তারিখে আমার মেয়ের জামাইয়ের সাইকেল নিয়ে ভাইয়ের ছেলেকে পান আনতে পাঠালে সে সাইকেলটি দোকানের রাখে। সেখান থেকে আসামী শুকুর আলী সাইকেলটি চুরি করে নিয়ে যায়। যাহা আমার প্রতিবেশি দিলাৱা স্বচোখে নিয়ে যেতে দেখেছে। এছাড়া আসামীর নামে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন জিনিসপত্র চুরি করার রেকর্ড আছে। এমনকি বিভিন্ন চুরির ঘটনায় তার নামে এলাকার লোকজন কর্তৃক থানায় ৩টি জিড়ি রয়েছে। উক্ত শুকুর আলী এলাকার বিভিন্ন জিনিসপত্র চুরি করে তার বোন আইরিন আক্তার এবংতার ভাগনি মাদক বিক্রেতা নিপা আক্তারের বাসায় রাখেন। তাদের ছত্রছায়ায়তে উক্ত শুরুর আলী চুরিসহ বিভিন্ন অপরাধ কর্মকান্ডে লিপ্ত। তার অত্যাচারে এলাকাবাসী অতীষ্ট হয়ে পড়েছে। আমি আমার মেয়ের জামাইয়ের সাইকেল চাইতে গেলে আসামী শুকুর আলী এবং তার বোন ভাগনীসহ আরো ৪/৫ জন লাঠি সোটা নিয়ে আমাদেরকে মারতে আসে এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এমনকি আমাদের বাড়ী ঘর আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার হুমকি প্রদান করে। এমতাবস্থায় আমি এবং আমার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগিতেছি। বিধায় নিরুপায় হয়ে সুবিচারের জন্য আপনার দারস্থ হলাম। তারিখঃ ১৩/০৩/২০১৩ইং অতএব, মহোদয় সমীপে আমার আকুল আবেদন এই যে, উপরোল্লিখিত বর্ণনামতে আমার আসামীগণের অন্যায়ভাবে হুমকি ধমকি এবং চুরির ঘটনা সরেজমিনে তদন্ত পূর্বক সুবিচার করতে আপনার সদয় মর্জি হয়। নিবেদক -মোছাঃলাভলী আক্তার। এখানেই শেষ নয়। এদের পরিবারের সকল সদস্যের একমাত্র আয়ের উৎস এই মাদক বিক্তি।পরিবারের এত সদস্য মাঝে প্রকাশ্যে কারো কোন কোন কাজ করতে দেখিনি কেউ কিংবা করতে কোন চাকরি। একমাত্র আয়ের উৎস বলতে বেছে নিয়েছে মাদক ব্যবসা। কিছুদিন পর পর এলাকায় পুলিশ আসে। এদের বাড়িতে দাওয়াত খেয়ে চলে যাই। আবার কেউ কেউ একটু চিৎকার চেঁচামেচি করে চলে যাই। এদের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী কেউ কোন কথা বললে বিভিন্ন রকমের হয়রানির শিকার হতে হয়। পুলিশের অনেক বড় বড় অফিসার রয়েছেন এদের হাতে বলেন চাপুলিয়া এলাকাবাসী। চাপুলিয়া এলাকাবাসীর কথার উপর যাচাই করতে গিয়ে সংগ্রহ করলা হলো এদের মাদক মামলার সকল তথ্য । গাজীপুর মেট্রোপলিটন সদর থানা চাপুলিয়া এলাকার এই ভয়ানক মাদক বিক্রেতা নিপা আক্তারের নামে দুইটি মাদকের মামলা রয়েছেন। সেই মাদক মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণ – নাম-মোছাঃনিপা আক্তার। পিতা-মো:হানিফ বাবুর্চি। স্বামী -মোঃসরিফ উদ্দিন। সাং-চাপুলিয়া। থানা-সদর। জেলা-গাজীপুর মহানগর। ২টা মাদক মামলার আসামি নিপা আক্তার তার মাঝে। একটি পৌবাইল থানা ও অপরটি গাজীপুর মেট্রোপলিটন সদর থানা। বিবরণ – ১/ পূবাইল থানার এফআইআর নং-১৬/১৪৫, তারিখ- ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০; সময়-রাত ১২.১০ ঘটিকা ধারা-৩৬ (১) সারণির ১০(ক)/ ৪১ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮। ২/ সদর থানা থানার এফআইআর নং-৩০, তারিখ- ১৮ নভেম্বর, ২০২২; জি আর নং-৪৩১, তারিখ- ১৮ নভেম্বর, ২০২২; সময়- ০২.১৫ ধারা- ৩৬(১) সারণির ১০(ক)/৪১ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮। ভয়ানক মাদকসম্রাগী -নিপা আক্তারের স্বামী- শরিফ উদ্দিনের নামে রয়েছেন প্রায় এক ডজন মাদক মামলা। তার মাঝে কিছু মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণ। নাম -মোঃ শরীফ উদ্দিন। পিতা-মোঃআজিজুল ইসলাম ওরফে আইজুল। স্থায়ী : গ্রাম-চাপুলিয়া (ছাপড়া মসজিদ সংলগ্ন), সদর থানা, জেলা গাজীপুর, বাংলাদেশ ১।(SRDS) জিএমপি এর সদর থানার এফআইআর নং-৩৮/৬৩, তারিখ- ২৬ অক্টোবর, ২০১৮; সময়- ০৯.৩০ ধা এর ১(ক)/২৫ ১৯৯০ সালের। ২/মোঃ শরীফ (৩৬), পিতা- আজিজুল ইসলাম ওরফে আইজুল, মাতা- মৃত মাজেদা খাতুন জিএমপি এর সদর থানা থানার এফআইআর নং-৫৭/২১৩, তারিখ- ৩০ মে, ২০১১, সময়- ২০.১০ ধারা- ৩৬(১) সারণি- মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮; ৩/ জিএমপি এর সদর থানা খানার, এফআইআর নং-৫০/৪১৬, তারিখ- ২১ জুলাই, ২০১৯; সময়- ১০:০৫ ধারা- ৩৬(১) সা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮;, এই মামলা। ৪/ গাজীপুর এর জয়দেবপুর থানার এফআইআর নং-১৮৬, তারিখ- ২৭ মার্চ, ২০১৮; সময়- ১০.৩৫ ঘটিকা। ধারা- ১৯(১) ১৯৯০ সালের মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ;, এই মামলা। ৫।জিএমপি এর সদর খানার, এফআইআর নং-২১/১৯৬, তারিখ- ১৯ মে, ২০২২; ধারা- ৩৬(১) সারণির ৮(খ)/৩৮ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮,, এই মামলা। ৬।জিএমপি এর সদর খানার, এফআইআর নং-১৮/২৬১, তারিখ- ১৩ জুলাই, ২০২১; সময়- ০০.০৫ ধারা- ৩৬(১) সারি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮;। ৭।জিএমপি এর গাছা থানার এফআইআর নং-২২/১২৩, তারিখ- ২৩ মে, ২০২১; সময়- ০২.১৫ ধারা- ৩৮০/৫০৬ এই মামলা। ৮।জিএমপি এর সদর খানার, এফআইআর নং-৭/৪৫, তারিখ- ০৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২২; সময়- ২২.০৫ ধারা- ৩৬(১) মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮,, এই মামলা। সূত্র যানা যায় এছাড়াও আরো ৫ টি মামলা রয়েছেন এই মাদক বিক্রেতা শরিফ উদ্দিনের নামে। তারপরেও পুলিশ প্রকাশ্যে কিভাবে এদেরকে ছেড়ে দিয়ে চলে আসে। জিজ্ঞাসা করলে বলেন হ্যাচিং করে আসামি নিয়ে চলে যায় নিপা সিন্ডিকেট সদস্যরা। গাজীপুর মেট্রপলিটন পুলিশ কমিশনার মহোদয়ের ও বাংলাদেশ সরকার জননেত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন চাপুলিয়া এলাকাবাসি। এদের মত বেপরোয়া মাদক ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় নিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের সম্মান রক্ষা করুন ও গাজীপুর মহানগর চাপুলিয়া এলাকার যুব সমাজের আগামী ভবিষ্যৎ রক্ষা করুন।সেই সাথে আইনের সুশাসন পরিচালনা করে মধ্যবিত্ত পরিবারের ছেলেদের বিষাক্ত মাদকের কালো থাবা থেকে বাচান,সেই সাথে এদেরকে আইনের আওতায় নিয়ে সাধারণ নাগরিক দেরমনে পুলিশ ও আইনের প্রতি আস্তা আনোন । গাজীপুর মহানগর ২৪নং ওয়ার্ড চাপুলিয়া এলাকাবাসী।

এ জাতীয় আরও খবর
Translate »