1. smsitservice007gmail.com : admin :
মানিকগঞ্জে হাসপাতাল ও ডাক্তারের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু। - সতেজ বার্তা ২৪
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪৭ অপরাহ্ন
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
দেবোত্তর সম্পত্তি আত্মসাৎ ও শিব লিঙ্গ বিক্রির অভিযোগ ছাত্রলীগের সভাপতি আতিকের ডিগবাজি না’কি বিদ্রোহ? সাভারে মাদকের সয়লব , এক নজরে মাদক গ্যাং রাজশাহী আওয়ামী  প্রকাশ্যে বিভক্তির আভাস দায়ী কে ? তানোরে ৩টি পাকা রাস্তা নির্মাণ কাজের উদ্বোধন ভোলার লালমোহন উপজেলার ৭নং পশ্চিম চর উমেদ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী তরুন মেধাবী যুবনেতা সাইফুল ইসলাম শাকিল তানোরে প্রবেশপত্র আটকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ চাষাড়ায় ফিল্ম স্টাইলে কুপিয়ে দানিয়াল নামের এক যুবককে হত্যা করলো দুর্বৃত্তরা..! তানোরে দোকানের সামনে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করে প্রতিবন্ধকতা ২০ বছর পাড় হয়নি ধর্ষন, মাদক সহ ২৪টি মামার আসামি ইয়াবা সুন্দরীর ছেলে কিশোর গ্যাং লিডার তানভীরের.

মানিকগঞ্জে হাসপাতাল ও ডাক্তারের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু।

স্টাফ রিপোর্ট-মোঃ মাহাবুব আলম তুষার 
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২৬ জুলাই, ২০২৩
  • ৯০ বার পঠিত

মানিকগঞ্জে বলাকা জেনারেল হাসাপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার কর্তৃপক্ষ এবং চিকিৎসকের অবহেলায় নাসরিন আক্তার (৩২) নামের এক গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে তার স্বজনেরা।
নিহত নাসরিন বেগম জেলার ঘিওর উপজেরার নয়ারচর গ্রামের মো. রিপন মিয়ার স্ত্রী। সদ্য ভুমিষ্ট পুত্র সন্তান ছাড়াও এগার ও ছয় বছর বয়সী দুইটি কন্যাসন্তান রয়েছে তার।
জানা গেছে, গত সোমবার দুপুরের দিকে চিকিৎসক ওসমান গণির তত্বাবধানে বলাকা জেনারেল হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশন করতে ভর্তি হন নাসরিন বেগম। ওই দিন বিকেল ৫টায় অপারেশন করেন চিকিৎসক মো. ওসমান গনি। অপারেশন করার সময় রোগীর রক্তনালী কেটে যাওয়ার পর তাকে সাভারের এনাম মেডিকেল হসাপাতালে রেফার্ড করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় প্রসুতি নাসরিন বেগম।
নিহত নাসরিন বেগমের স্বামী রিপন মিয়া জানান, ‘অপারেশনের সময় আমার স্ত্রীর রক্তনালী কেটে ফেলেছিল। অপারেশনে যে সমস্যা হয়েছে সেটা আমাদের জানায়নি। কয়েক ব্যাগ রক্ত দেয়ার পর সন্দেহ হলে আমি বার বার জিজ্ঞাসা করার পর বলেছে। পরে আমার স্ত্রীকে এনাম মেডিকেলে রেফার্ড করে। এনাম মেডিকেলের চিকিৎসকরা বলেছে, রক্তনালী কেটে ফেলায় প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। এ কারণে রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এখন তিনটা সন্তান নিয়ে আমি খুব বিপদে পড়ে গেছি। আমি এই অবহেলা ও ভূল চিকিৎসার বিচার চাই।’
বুধবার সকাল ১১টার দিকে বলাকা জেনারেল হাসাপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের গুরুত্বপূর্ণ রুমগুলো তালা দিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লাপাত্তা হয়ে গেছে। হাসপাতালটিতে কোন রোগী, চিকিৎসক, নার্স বা অন্যান্য কোন স্টাফ নেই। এরপর দুপুর ১টার দিকে নিহত নাসরিন বেগমের পিতার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বলাকা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ স্থানীয়দের মাধ্যমে রোগীর স্বজনদের সঙ্গে আপস-মীমাংসার চেষ্টা করছে।
এদিকে অভিযুক্ত চিকিৎসক ওসমান গনি ভূল চিকিৎসার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, অপারেশনের আগে ডা. মোসলেম উদ্দিন আল্ট্রাসনোগাম করে রিপোর্ট দিয়েছিল। তার রিপোর্টে লেখা ছিলা একরকম আর রোগীর বাস্তব অবস্থা ছিল অন্যরকম। যেকারণে রোগীর প্রকৃত অবস্থা জানা যায়নি। এ কারণে অপারেশনে একটু জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। আল্ট্রা রিপোর্টে রোগীর প্রকৃত অবস্থা জানা গেলে এমন জটিল রোগীদের আমরা অপারেশন না করে ঢাকা মেডিকেলে রেফার্ড করি।
তবে ডা. মোসলেম উদ্দিন বলেন, আল্ট্রা রিপোর্ট সঠিক ছিল। এককে রোগীর প্লাসেন্টা একেকরকম অবস্থায় থাকে। প্লাসেন্টা সমস্যার কারণে এত ব্লিডিং হয়না। রক্তবাহী মোটা নালী কেটে গেলে ব্লিডিং আর থামানো যায়না। হয়তো এক্ষেত্রে এই সমস্যা হয়েছে।
বলাকা জেনারেল হাসাপতালের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন বলেন, ডাক্তারের কারণে রোগী মারা গেছে। এখানে হাসপাতালের কোন গাফলতি নেই। রোগীর সেবা প্রদানে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। এই রোগীর মৃত্যুর দায় ডাক্তারকেই নিতে হবে।
এ ব্যাপারে মানিকগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মোয়াজ্জেম আলী খান চৌধুরী বলেন, রোগীর লোকজন আমাদের কাছে অভিযোগ করলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুর রউফ সরকার বলেন, এ বিষয়ে এখনও কোন অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ জাতীয় আরও খবর
Translate »