1. admin@sotejbarta24.com : admin :
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০২:১৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ:
কাতারের মসজিদগুলিতে আরোপিত বিধিনিষেধ প্রত্যাহার
সংবাদ শিরোনাম:
কাতারে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে কোভিক-১৯ ভ্যাকসিনেশন সেন্টার কাতারের শুরা কাউন্সিল নির্বাচনে প্রথমবারের মতো সরাসরি নিয়োগ ফিলিস্তিনিদের সহায়তায় ৫০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়া অব্যহৃত রেখেছে কাতার সরকার সাত মাস ধরে বেতন পাচ্ছেন না সারাদেশে নোকিয়া মার্কেট এক্সপ্রেসে’র এর কর্মীরা। অলিপুরা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ছিনতাইকারী ও রিক্সা উদ্ধার কাতারে QID সংক্রান্ত অবৈধ প্রবাসীদের বৈধ হওয়ার বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার সুখবর ঘোষনা দিল কাতার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কাতারে গতবছরের তুলনায় বহুগুণে বেড়ে চলেছে পর্যটকের সংখ্যা ফিফা ফুটবল কোর্টের বিরোধ নিষ্পত্তি কমিটির সদস্য রায়পুরায় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন দিবস ২০২১ পালিত

 273 total views,  209 views today

কাজের টাকা নিয়ে উধাও ঠিকাদারী কোম্পানী

মো: শামীম আহমেদ
  • আপডেট সময়: শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১
  • ৬৯ বার পঠিত
কাজ শেষ না হওয়া চট্টগ্রাম নগরের পোর্ট কানেকটিং সড়কের হাল। গতকাল বিকেলে সরাইপাড়া এলাকায়।

যাতায়াতের দুর্ভোগ ও জলাবদ্ধতা নিরসনে উন্নয়ন প্রকল্পগুলো নেওয়া হয়েছিল। এভাবে মাঝপথে উন্নয়নকাজ বন্ধ করে দেওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন চট্টগ্রাম নগরের বাসিন্দারা। আর ঠিকাদারদের এমন আচরণে বিপাকে পড়েছে সিটি করপোরেশন। বাকি কাজ শেষ করতে এখন নতুন করে ঠিকাদার নিয়োগ দিতে হচ্ছে সংস্থাটিকে। চলতি মাসে এ প্রক্রিয়া শেষ হবে।

সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম  বলেন, এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে কালো তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে। এরা ভবিষ্যতে সিটি করপোরেশনের কোনো কাজ করতে পারবে না। এদের জরিমানাও করা হবে।

চট্টগ্রাম নগরের বৃষ্টির পানিনিষ্কাশনে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মহেশ খাল। এই খালের দুই পাশে প্রতিরোধ দেয়াল ও সড়ক নির্মাণে ৪১ কোটি টাকার কাজ পায় মঈনুদ্দিন বাঁশী নামের এক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু কাজটি করছিল কুমিল্লার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ‘ছালেহ আহাম্মদ’। এই প্রতিষ্ঠানের মালিক কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পীরযাত্রাপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন।

এ প্রকল্পের কাজের জন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল ২০১৭ সালের ৩ ডিসেম্বর। ২০১৯ সালের ৩ জুন কাজ শেষ করার কথা ছিল। কিন্তু দুই দফা সময় দেওয়ার পরেও কাজ শেষ করেননি ঠিকাদার। ইতিমধ্যে ঠিকাদারকে ১৮ কোটি ৭২ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে সিটি করপোরেশন।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ছালেহ আহাম্মদ আরও দুটি উপপ্রকল্পের কাজ পেয়েছিল। এগুলো চট্টগ্রাম নগরের গুরুত্বপূর্ণ পোর্ট কানেকটিং (পিসি) সড়কের উন্নয়ন ও সংস্কার। ব্যয় ধরা হয় ১০৭ কোটি টাকা। কিন্তু ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে নির্মাণকাজের কার্যাদেশ পেলেও শেষ পর্যন্ত তিন কিলোমিটারের কাজ শেষ হয়নি। এই দুটি কাজের বিপরীতে এই ঠিকাদারকে দেওয়া হয়েছে ৬০ কোটি টাকা।

এদিকে পিসি রোডের আরেকটি অংশের কাজ পায় যৌথভাবে ইয়াকুব, ম্যাক ও এস অনন্ত ত্রিপুরা নামের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে এই কাজটি করছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও পরিবহন মালিক সমিতির নেতা মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী। ২৭ শতাংশ কাজের জন্য তাঁকে ৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়। তবে তিনি দাবি করেছেন, অন্য ঠিকাদারদের সময় বাড়িয়ে দেওয়া হলেও তাঁকে দেওয়া হয়নি।

এ ছাড়া ভিন্ন ভিন্ন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে চুক্তি হলেও চারটি প্রকল্পের কাজ তদারকি করতেন শাকিল আহমেদ নামের এক ঠিকাদার। এই চারটি কাজের অগ্রগতি ছিল যথাক্রমে ১৪ শতাংশ, ৪ শতাংশ, ৩১ শতাংশ ও ২১ শতাংশ। এই কাজগুলোর বিপরীতে ২ কোটি ৪১ লাখ টাকা পরিশোধ করা হয়েছিল। শাকিল আহমেদের দাবি, অসুস্থ থাকায় ঠিক সময়ে কাজ শেষ করতে পারেননি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও খবর...

ফেসবুকে আমরা

English version»